• Home
  • Entertainment
  • Bollywood
  • বলিউডের সুপারহিট কিছু ছবি যা পাকিস্তানে নিষিদ্ধ
Bollywood Entertainment

বলিউডের সুপারহিট কিছু ছবি যা পাকিস্তানে নিষিদ্ধ

দুই প্রতিবেশী দেশ ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে রাজনৈতিক বিরোধ যতই থাক, বলিউডের ছবির কদর সারা বিশ্বের সঙ্গে পাক জনতার মধ্যেও রয়েছে। কিন্তু, বলিউডের কিছু ছবি এমন আছে যেগুলি ওদেশে মুক্তি পেতে দেওয়া হলে, সমস্যায় পড়তে হতে পারে ক্ষমতার কেন্দ্রে যে কর্তৃপক্ষগুলি আছে, তারা। কারণ, বলিউডে যে ছবিই হোক না কেন, তার পিছনে কোনও না কোনও মেসেজ ঠিকই থাকে। আর সেটা পাকিস্তানের জনগণের কাছে যাক, পাক কর্তৃপক্ষ কখনই চায় না। বলিউডে ১৫টি ছবি এমন আছে যেগুলি বাণিজ্যিকভাবে সফল হলেও, পাকিস্তানে নিষিদ্ধ।

ভাগ মিলখা ভাগঃ

ফারহান আখতার অভিনীত ছবিটি দৌড়বিদ ফ্লাইং শিখ নামে খ্যাত প্রয়াত মিলখা সিং’য়ের বায়োপিক। ছবিটিতে একটি ডায়লগ আছে ফারহানের মুখে – ‘মুঝসে নহি হোগা, ম্যায় পাকিস্তান নহি জায়ুঙ্গা’। পাক কর্তৃপক্ষের মতে ছবিটি সে দেশে মুক্তি দিলে, জাতীয় আবেগে ধাক্কা লাগতে পারে। ফলে সেখানে নিষিদ্ধ এই ছবিটি। আসলে মিলখা সিং দেশভাগের সময় এদেশে চলে আসেন। সে সময় পাকিস্তানে তাঁর পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। সেটাই দেখানো হয়েছে, ছবিতে।

হায়দারঃ

শাহিদ কাপুর ও তবু অভিনীত ছবিটি কাশ্মীরে পাক সন্ত্রাস নিয়ে। হ্যামলেটের ধাঁচে ছবিটি ১৯৯৫ সালের কাশ্মীরের সত্য ঘটনার ওপর নির্ভর করে তৈরি। ফলে, এই ছবিটি তাদের দেশের জনগণ দেখুক, তা চায় না পাকিস্তান।

ফ্যান্টমঃ

সঈফ আলি খান ও ক্যাটরিনা কাঈফ অভিনীত এই ছবিটি পাক মদুতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদী হাফিজ সঈদকে নিয়ে। ২৬/১১ মুম্বই হামলার ঘটনাকে তুলে ধরে ছবিটি নির্মিত। পাকিস্তান ছবিটিকে সেই কারণে নিষিদ্ধ করেছে।

নাম শাবানাঃ

অক্ষয় কুমার ও তপসী পান্নু অভিনীত বলিউডের এই রোমাঞ্চে ভরা গোয়েন্দা সিনেমাটি পাকিস্তানে নিষিদ্ধ। তাও আবার রিলিজ করার পরের দিন নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়। আসলে ইসলামাবাদের আদেশে প্রথমে ছবিটির কিছু অংশ বাদ দেওয়ার পর মুক্তি দিতে সার্টিফিকেট দেয় সেদেশের সেন্সর বোর্ড। পরের দিন মনে হয়, ছবিটি মুক্তি দেওয়া ঠিক হয়নি। ফলে, নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়।

নীরজাঃ

সোনম কাপুর অভিনীত আরও একটি ছবি। এখানে পাকিস্তানে সভ্য সমাজ বিরোধী ভাবমূর্তি উঠে এসেছে। ছবিটি সত্য ঘটনার অনুকরণে নির্মিত। ছবিটিতে ‘র’ এবং ‘আইএসআই’য়ের পারস্পরিক দ্বন্দ্বের উল্লেখ বহুবার আছে। আর তাতে বেজায় ক্ষুব্ধ হয় ইসলামাবাদ। ফলে, ছবিটি ওদেশে নিষিদ্ধ।

অ্যায় দিন হ্যায় মুশকিলঃ

পাকিস্তানি অভিনেতা ফাওয়াদ খান ছবিটিতে অন্যতম চরিত্রে থাকলেও, সেদেশেই ছবিটি নিষিদ্ধ। উরি হামলা নিয়ে ছবিটিতে কিছু বিতর্কিত মন্তব্য থাকায়, সে দেশে এটি মুক্তি পেতে দেওয়া হয়নি। তার পরেই পাক অভিনেতাদের ভারতে কাজ করার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে ইম্পা।

ঢিশুমঃ

জন আব্রাহাম, বরুণ ধওয়ন ও জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ অভিনীত ছবিটিতে নাম না করে আদ্যোপান্ত পাকিস্তানের মাটিতে বসে আফগানিস্তানের ভূখণ্ড কাজে লাগিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে পাক সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ নিয়ে। ছবিটিতে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের আগে এক ভারতীয় ক্রিকেটারকে অপহরণ করার গল্প নিয়ে তৈরি। তাতেই আঘাত লেগেছে পাক কর্তৃপক্ষের। ফলে ছবিটি সেদেশে নিষিদ্ধ।

রঈসঃ

শাহরুখ খান অভিনীত ছবিটি এক চোরা কারবারির জীবনি অবলম্বনে। ছবিতে কিং খানের বিপরীতে পাক নায়িকা মাহিরা অভিনয় করেছেন। ছবিটিতে দেখানো হয়েছে, সব মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের কিভাবে বাকি ধর্মের মানুষরা সন্ত্রাসবাদী এবং দাগী আসামী হিসেবে দেখে ভুল করে। ছবিটি বার্তাবহ হলেও, পাকিস্তানের মনে হয়েছে, সেদেশে ছবিটি মুক্তি পেলে সাধারণ মানুষের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত লাগতে পারে।

জলি এলএলবি২ঃ

অক্ষয কুমার অভিনীত ছবিটি জলি এলএলবি’র সিক্যুয়েল। ছবিটিতে বলিউডের খিলাড়ি এক আইনজীবীর চরিত্রে। গল্পে কাশ্মীর সমস্যা ও পাক মদুতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদীর উল্লেখ রয়েছে। তাতেই সিনেমাটি নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে ওদেশে।

দঙ্গলঃ

মিস্টার পারফেকশনিস্ট আমির খান অভিনীত ছবিটি দু’হাজার কোটি টাকারও বেশি বাজার করেছে সব মিলিয়ে। ছবিটি সর্বত্র সমাদৃত হলেও, পাকিস্তানে নিষিদ্ধ। কারণ, পাক সেন্সর বোর্ড ছবিটির দু’টি দৃশ্য বাদ দিতে বলেছিল। আর আমির তাতে রাজি হননি। তিনি বলেছিলেন, ছবিটি পাকিস্তানে মুক্তি পাওয়ার দরকার নেই। ব্যাস তারপর পাক সেন্সর বোর্ড ছবিটি নিষিদ্ধ করে দেয়।

টাইগার জিন্দা হ্যায়ঃ

সলমন খান ও ক্যাটরিনা কাঈফ নির্মিত ছবিটি পাকিস্তানে মুক্তি পেতে দেওয়া হয়নি। সেখানকার সেন্সর বোর্ড ছাড়পত্র দিতে রাজি হয়নি। কারণ, ছবিটিতে অনেক কিছু বিতর্কিত অধ্যায় রয়েছে, যা পাকিস্তানের স্বার্থবিরোধী।
৩. টিউবলাইটঃ
সলমন খান অভিনীত ছবিটিতে পাকিস্তানকে নিয়ে কোনও কিছু মন্তব্য না করা হলেও, সে দেশে ছবিটি মুক্তি পেতে দেওয়া হয়নি। কারণ, ছবিটি সেদেশে দেখানোর জন্য যে অর্থ চাওয়া হয়েছিল, তা পাকিস্তানের ছবি ডিস্ট্রিবিউটরদের কাছে অনেক বেশি ছিল সাধ্যের তুলনায়। তারা তা দিতে পারেনি। ফলে, ছবিটি নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয় আর্থিক কারণে।

পরিঃ

অনুষ্কা শর্মা অভিনীত এই ছবিটি মুসলিম ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত দিতে পারে এই ভেবে সে দেশের সেন্সর বোর্ড মুক্তি পেতে দেয়নি। কালাজাদুর পটভূমির ওপর তৈরি ছবিটি ওদেশে নিষিদ্ধ।

প্যাডম্যানঃ

অক্ষয় কুমার অভিনীত এই ছবিটি অরুণাচলম মুরুগন্থমের জীবনের ওপর অবলম্বিত। ছবিটিতে মহিলাদের ঋতুকালীন সমস্যা ও সেই সময় অস্বাস্থ্যকর উপায় ছেড়ে স্যানিটারি ন্যাপকিনের ব্যবহার করা শেখানোর ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। পাক কর্তৃপক্ষের মতে ছবিটি সে দেশে কখনই দেখানো যেতে পারে না। কারণ, সে দেশে মহিলাদের সমস্যা নিয়ে খোলামেলা আলোচনা চলে না। ফলে, ছবিটিতে সামাজিক উন্নয়নের জন্য যতই অর্থবহ বার্তা দেওয়া হোক, পাকিস্তানে নিষিদ্ধ।

Related posts

On December 7, ‘Mowgli

admin

Will Shahrukh Khan and Salman Khan ever do a movie again together?

admin

Some unknown facts about Sunny Leone

admin

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy