সাব্বিরের সেঞ্চুরির পরও রাজশাহীর হার

সাব্বিরের সেঞ্চুরির পরও রাজশাহীর হার

Published:13 Nov 2016   06:10:31 PM   Sunday   ||   Updated:13 Nov 2016   06:15:12 PM   Sunday
দারুণ এক সেঞ্চুরি করেও দলকে জেতাতে পারলেন না সাব্বির

দারুণ এক সেঞ্চুরি করেও দলকে জেতাতে পারলেন না সাব্বির

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্যারিয়ারের প্রথম টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরির ম্যাচটি জয় দিয়ে রাঙিয়ে রাখতে পারলেন না সাব্বির রহমান। বড় লক্ষ্য তাড়ায় সাব্বিরের সেঞ্চুরির পরও বরিশাল বুলসের কাছে ৪ রানে হেরে গেছে রাজশাহী কিংস।

মিরপুরে রোববার দিনের প্রথম এই ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নেমে মুশফিকুর রহিম ও শাহরিয়ার নাফীফের ফিফটিতে ৪ উইকেটে ১৯২ রান করে বরিশাল। জবাবে সাব্বিরের সেঞ্চুরির পরও ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৮৮ রানের বেশি করতে পারেনি রাজশাহী।

বড় লক্ষ্য তাড়ায় রাজশাহীর শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি। মনির হোসেনের করা ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই নাফীসকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান রকিবুল হাসান (০)। দ্বিতীয় উইকেটে দলকে ৪৯ পর্যন্ত টেনে নিয়েছিলেন মুমিনুল হক ও সাব্বির। কিন্তু আল-আমিন হোসেনের পরপর দুই বলে সাজঘরে ফেরেন মুমিনুল (১২) ও উমর আকমল (০)। তবে একপ্রান্ত আগলে রাখা সাব্বির ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে চতুর্থ উইকেটে সামিত প্যাটেলকে সঙ্গে নিয়ে ৪০ বলে গড়েন ৬৮ রানের জুটি।

সামিত ১৫ রান করে ফিরে গেলেও ঝোড়ো ব্যাটিং অব্যাহত সেঞ্চুরি তুলে নেন সাব্বির। ব্যক্তিগত ৯৯ থেকে আবু হায়দার রনির বলে ২ রান নিয়ে ৫৩ বলে ক্যারিয়ারের প্রথম টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন এই ডানহাতি। সেঞ্চুরি পূর্ণ করতেই তিনি ছক্কা হাঁকান ৮টি, চার ৬টি।

সেঞ্চুরির পরে আরো তিনটি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান সাব্বির। আল-আমিনের বলে আউট হওয়ার আগে ৮৩ বলে খেলেন ১২২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। মোট ৯টি করে চার ও ছক্কায় সাজানো ছিল ইনিংসটি।

সাব্বিরের বিদায়ের সময় জয়ের জন্য রাজশাহীর প্রয়োজন ছিল ২৪ বলে ৩৪ রান। শেষ ওভারে যেটি দাঁড়ায় ৯ রানে। কিন্তু থিসারা পেরেরার করা শেষ ওভার থেকে ৪ রানের বেশি করতে পারেনি রাজশাহী। ফলে বৃথা যায় সাব্বিরের সেঞ্চুরির ইনিংসটি।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে বরিশালের শুরুটাও হয়েছিল বাজে। ২১ রানের মধ্যেই ফিরে যান দুই ওপেনার দিলশান মুনাবিরা (০) ও ডেভিড মালান (১৩)। তবে তৃতীয় উইকেটে ১১২ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও শাহরিয়ার নাফীস।

শাহরিয়ার ৪৪ বলে ৬৩ করে ফিরে গেলেও শেষ পর্যন্ত ৫২ বলে ৮১ রানে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক। অধিনায়কের ইনিংসে ছিল ৫টি চার ও ৪টি ছক্কার মার। শেষদিকে থিসারা পেরেরা ১১ বলে ২৪ রানের ছোট্ট ঝোড়ো ইনিংস খেলেন। তাতে বরিশাল পায় এবারের আসরের সর্বোচ্চ সংগ্রহ। সেটি তাড়া করে জয় প্রায় ছিনিয়েই নিচ্ছিলেন সাব্বির। কিন্তু শেষ হাসি হাসল বরিশাল।

No comments: