ইসি পুনর্গঠন খালেদার প্রস্তাবে জনমত চান ফখরুল

ইসি পুনর্গঠন

খালেদার প্রস্তাবে জনমত চান ফখরুল

নাজমুল হোসেন : দেশআমারবিডি ডট কম
Published:19 Nov 2016   02:44:30 PM   Saturday   
খালেদার প্রস্তাবে জনমত চান ফখরুল
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন ও শক্তিশালীকরণে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দেওয়া প্রস্তাব ও সুপারিশের পক্ষে জনমত গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

প্রস্তাবনা প্রত্যাখ্যান করে আওয়ামী লীগের দেওয়া বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, তাদের প্রতিক্রিয়া আগে থেকেই ঠিক করা ছিলো।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর কচিকাঁচা মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে ‘জিয়া আমার চেতনা’ শীর্ষক স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ‘জিয়া নাগরিক ফোরাম’ (জিনাফ)।

আগামী ফেব্রুয়ারিতে শেষ হচ্ছে কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ। এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন ও শক্তিশালীকরণের প্রক্রিয়া নিয়ে বিএনপির ২০ প্রস্তাবনা ও সুপারিশ তুলে ধরেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ প্রস্তাবনাকে অন্তঃসারশূন্য আখ্যা দিয়ে তা প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা বলছে, সংবিধান অনুযায়ী সার্চ কমিটি গঠনের মাধ্যমেই নতুন ইসি গঠন হবে।

আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনসহ আগামী নির্বাচনের ব্যাপারে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যে প্রস্তাব দিয়েছেন, তার পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রস্তাবনা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগ তাদের প্রতিক্রিয়ায় তা প্রত্যাখান করেছে। মনে হচ্ছে এটা তাদের আগেই তৈরি করা ছিল। যেমন বাজেট হলে কেউ তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া তুলে ধরেন। অথচ সেই প্রস্তাবনায় আমাদের চেয়ারপারসন দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য, গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনা এবং রক্ষার জন্য প্রস্তাব দিয়েছেন।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগের চরিত্র সম্পর্কে দেশবাসীর ভালো জানা আছে। তারা জানে যে আওয়ামী লীগ অতীতে কী করেছিল। তাদের কর্মকাণ্ড কী। এ জন্যই তারা সুষ্ঠু নির্বাচনকে ভয় পায়। তারা আমাদের সম্ভাবনাগুলো এবং গণতান্ত্রিক স্বপ্নগুলোকে নষ্ট করে দিচ্ছে। এমতাবস্থায় আন্দোলনে নামা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশের বর্তমান পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। এমতাবস্থায় বিদেশি বিনিয়োগ হতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘আজ জঙ্গিবাদের নামে লোক ধরা হচ্ছে। কিছুদিন পর তাদের মেরে ফেলা হচ্ছে। কোনো তদন্ত হচ্ছে না। বিনা বিচারে তাদের মেরে ফেলা হচ্ছে। তাহলে জঙ্গিবাদের উৎস চিহ্নিত হবে কি করে? এজন্যই আমরা জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছিলাম। কিন্তু তা হয়নি।’

জিনাফের সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ারের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, নির্বাহী সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, কে এ জামান প্রমুখ।

No comments: