ঝিনাইদহে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

ঝিনাইদহে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

দেশআমার টোয়েন্টিফোর ডট কম ডেস্ক ঃ
Published:01 Jul 2016   09:21:54 AM   Friday   ||   Updated:01 Jul 2016   09:24:16 AM   Friday

ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুজন নিহত হয়েছেন। এ সময় অস্ত্র ও বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ।
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের উত্তরের মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

ঝিনাইদহ সদর থানার অফিসার ইনচর্জ (ওসি) হাসান হাফিজুর রহমান নিশ্চিত করে জানান, এ সময় তিনজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন।

নিহতদের মধ্যে একজন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বদনপুর গ্রামের শহীদ আল মাহমুদ (২৫) বলে নিশ্চিত করেছেন তার বড় ভাই আব্দুর রহিম। তার বাবার নাম রজব আলী বিশ্বাস। মাহমুদ ঝিনাইদহ আলিয়া মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পাস করেছেন।   

অন্যজনের নাম আনিস, বাড়ি কুষ্টিয়া বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তার বিস্তারিত পরিচয় এখনো জানা যায়নি। তিনি ২০১৩-১৪ সালে ঝিনাইদহ পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট থেকে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে বাড়িতে চলে যান।

ওসি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে, তেঁতুলবাড়িয়া এলাকায় একদল দুর্বৃত্ত নাশকতা সৃষ্টির জন্য অবস্থান করছে। এ সময় ঝিনাইদহ সদর থানার টহল পুলিশ তেঁতুলবাড়িয়ার রাস্তায় টহল দিচ্ছিল। পরে তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের উত্তর মাঠের মধ্যে পৌঁছালে দুর্বৃত্তরা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে প্রায় ২০ মিনিট গুলিবিনিময় হয়।

এতে পুলিশের এসআই প্রবীর, সদস্য রাব্বি ও তরিকুল আহত হন। এক পর্যায়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দু’জনের গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ঘটনাস্থল থেকে দেশে তৈরি একটি শুটার গান, ২ রাউন্ড গুলি, ছয়টি হাসুয়া ও পাঁচটি বোমা উদ্ধার করা হয়। আহত পুলিশ সদস্যদের ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে নিহত মাহমুদের বড় ভাই আব্দুর রহিমের দাবি, তার ভাইকে গত ১৩ জুন রাত ১২টার দিকে পুলিশের পরিচয় দিয়ে ৮-১০ জন সাদা পোশাকের লোক তুলে নিয়ে যান।


এলাকাবাসী জানান, নিহত মাহমুদ শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তবে আব্দুর রহিম তা অস্বীকার করে বলেন, কোনো সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে হয়তো তার ভাইয়ের সখ্য থাকতে পারে।

No comments: