দুর্নীতিতে মেয়েরা একটু কম জড়ায়: প্রধানমন্ত্রী

দুর্নীতিতে মেয়েরা একটু কম জড়ায়: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মেয়েদের হাতে কাজ দিলে তাঁরা অত্যন্ত সুনিপুণভাবে করে। দুর্নীতিতে মেয়েরা একটু কম জড়ায়। ছেলেরা একটু বেশি জড়ায়, এতে কোনো সন্দেহ নেই।’ নারীদের আর অবহেলার সুযোগ নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ‘অধিকার মর্যাদায় নারী-পুরুষ সমান সমান’—প্রতিপাদ্য নিয়ে এ বছর পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস।
শেখ হাসিনা বলেন, সারা দেশে মেয়েরা তাঁদের ওপর অর্পিত কাজগুলো সুচারুভাবে করে যাচ্ছেন। যত বেশি সুযোগ সৃষ্টি করতে পারব, তত বেশি কাজ করার সুযোগ তাঁরা পাবেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের কারও দিকে মুখাপেক্ষী হয়ে থাকলে চলবে না। নিজেদের এগিয়ে যেতে হবে। নিজের মর্যাদা নিজেকেই কর্মের মধ্য দিয়ে অর্জন করতে হবে। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, একজন মেয়ে যদি সারা দিন কাজ করে আঁচলে বেঁধে কিছু টাকা নিয়ে আসেন, তাহলে সংসারে তার দাম থাকে। আর্থিকভাবে নিজেকে সচ্ছল করতে পারলে সংসার, সমাজ সবাই তাঁকে দাম দেবে।’
একটি সংসার সুখী রাখতে মেয়েদের অনেক দায়িত্ব থাকে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি সংসার সুখের করতে মেয়েদের অনেক অনেক দায়িত্ব পালন করতে হয়। আশা করি, আমার বোনেরা সেই দায়িত্ব পালন করবেন। কথায় তো আছে যে রাঁধে, সে চুলও বাঁধে। মেয়েরা সব পারে। ঘরে যেমন কাজ করতে পারে, বাইরেও কাজ করতে পারে।’ সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে একটি ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব হবে বলেও প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার প্রধান, সংসদের স্পিকার, বিরোধীদলীয় নেতা, সংসদ উপনেতা সবাই নারী। বিশ্বের কোথাও এ ধরনের দৃষ্টান্ত নেই। বিশ্বের অনেক দেশ আছে, যারা ধনী। উন্নয়নে যারা বিশ্বব্যাপী মোড়লগিরি করে বেড়ায়, তাঁরা কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো নারী সরকারপ্রধান করতে পারেনি, বা নারীর ভোটের অধিকার দিয়েছে অনেক পরে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীতে নারীদের উপস্থিতি, জজকোর্টে নারী, নারী পাইলটসহ সাঁতার ও ভারোত্তলনে দুই নারীর স্বর্ণ জয়ের কথা উল্লেখ করেন।
বিশ্বে নারীরা দারিদ্র্যের কশাঘাতে জর্জরিত উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারীরা মর্যাদা থেকে বঞ্চিত। কাজ করলেও ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত। তারা অবহেলিত। প্রাকৃতিক দুর্যোগ কিংবা যুদ্ধ হলে নারী ও শিশুরা সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কারণ সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে থাকে। আমাদের এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে। সমাজের অর্ধেক নারীকে বাদ রেখে উন্নয়ন সম্ভব না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা যদি মানবদেহের কথা বলি, একটা অংশ পঙ্গু হলে চলাফেরা কত কষ্টকর সেটা সবাই উপলব্ধি করতে পারে। সে বিবেচনা করেই আমাদের সবাইকে চিন্তা করতে হবে, সমাজের সবাইকে এক সঙ্গে উন্নয়ন করতে হবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলাম ধর্ম প্রথম গ্রহণ করেছিলেন একজন নারী, বিবি খাদিজা (রা.)। ধর্মের নাম নিয়ে কখনো কাউকে পেছনে ঠেলে দেওয়া, কূপমণ্ডূকতায় বা ফেলা দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ইসলাম নারীকে স্বামীর সম্পদে যেমন তাঁদের অধিকার, তেমনি পিতার সম্পত্তিতে অধিকার দিয়েছে। এই সম্পদের অধিকার একমাত্র ইসলামে দেওয়া আছে, অন্য কোনো ধর্মে দেওয়া হয়নি এটা আপনারা দেখবেন। ইসলাম ধর্মে নারীদের গৌরবের ইতিহাস রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।
একাত্তরে নির্যাতিত মেয়েদের জন্য বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের ভালোবাসার কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সব পিতামাতা তাঁদের গ্রহণ করতে চায়নি, অনেকে পরিচয় দিতে চায়নি। তখন প্রশ্ন উঠেছিল, বিয়ে দিতে গেলে তো তাঁদের বাবার নাম লিখতে হবে। তখন জাতির পিতা বলেছিলেন, বাবার নামের জায়গায় আমার নাম লিখে দাও। বাড়ির ঠিকানা দাও ধানমন্ডি-৩২ নম্বরের সড়কের ওই বাড়িটি। অনেককে আমার মা নিজে দাঁড়িয়ে থেকে বিয়ে দিয়ে তাঁদের সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।’
নারীর অধিকার রক্ষায় নারী উন্নয়ন নীতিসহ সরকারের নানা পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সচিবালয় থেকে সব জায়গায় ডে-কেয়ার সেন্টার চালু করেছি। স্বামী পরিত্যক্তা, নির্যাতিত মেয়েদের জন্য ভাতার ব্যবস্থা, নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি। যৌতুক নিরোধ আইন সংশোধন করে যুগোপযোগী করা হচ্ছে। প্রতিটি বিভাগীয় শহরে আছে ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার। মেয়েরা যেন আইনি সহায়তা পায় সে ব্যবস্থাও করে দেওয়া হচ্ছে।’ সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ নারীদের আত্মবিশ্বাস সৃষ্টি করেছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

No comments: